ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:
ব্রেকিং নিউজ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৪ জানুয়ারি ২০২২, ১৫:০১

করোনার ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের চিকিৎসায় নতুন ওষুধের অনুমোদন দিল ডব্লিউএইচও

23939_51422.jpg
বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্তদের চিকিৎসায় নতুন দুইটি ওষুধ প্রয়োগের সুপারিশ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রকাশিত নির্দেশনায় বাতজ্বরে ভোগা করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ভ্যারিয়ান্টে জটিল আক্রান্ত রোগীদের ‘কর্টিকোস্টেরয়েড’ এর সাথে ‘বারিসিটিনিব’ ব্যবহারের সুপারিশ করে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ দল।

ওষুধটির কার্যকারিতার কথা উল্লেখ করে বিশেষজ্ঞ দল বলেন, এটিতে কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই এবং ব্যবহারের ফলে রোগীর ভেন্টিলেশন কমানোর প্রয়োজন হবে ও রোগীর বেঁচে থাকার হার বাড়বে।

প্যানেলটি সোট্রোভিম্যাবের জন্য একটি "শর্তসাপেক্ষ সুপারিশ" দিয়েছে, যাদের কম গুরুতর কোভিড-১৯ আছে, তাদের জন্য মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি একটি পরীক্ষামূলক চিকিৎসা। কিন্তু হাসপাতালে ভর্তির ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি পরীক্ষাগারে তৈরি শরীরের একটি প্রাকৃতিক প্রতিরক্ষা পদ্ধতি।

বিশ্বব্যাপী মহামারী ছড়িয়ে পড়ার মধ্যেই এই নতুন চিকিৎসার সুপারিশ আসলো। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে কোভিড-১৯ এ  দেড় কোটির অধিক মানুষ আক্রান্ত হয়েছে গত এক সপ্তাহে। এক সপ্তাহের মধ্যে ওমিক্রন ভেরিয়েন্ট সংক্রমিত হয়েছে সবচেয়ে বেশি। এর আগে সবখানে তা ছিল ডেল্টা ভেরিয়েন্ট।

সুপারিশটি করা হয়েছে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত কম গুরুতর, গুরুতর ও অধিক ঝুঁকিপূর্ণ প্রায় ৪০০০ রোগীর ওপর চালানো পরীক্ষার সাতটি প্রমাণের ভিত্তিতে।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার বিবৃতিতে বলা হয়, গাইডলাইনটিতে গুরুতর ও অধিক ঝুঁকিপূর্ণ কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর জন্য ইন্টারলিউকিন-৬ ব্লকার এবং সিস্টেমিক কর্টিাস্টেরয়েড ব্যবহারের আাগের সুপারিশগুলোও রাখা হয়েছে; বাছাইকৃত রোগীদের জন্য ক্যাসিরিভমাব-ইমডেভিমাব বা অন্য আরেকটি মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি চিকিৎসার জন্য শর্তসাপেক্ষ সুপারিশ; এবং কোভিড-১৯ রোগের তীব্রতার প্রেক্ষিতে কনভারেসেন্ট প্লাজমার পরিবর্তে আইভারমেকটিন ও হাইড্রোক্লোরোকুইন ব্যবহার করা।

ফ্রান্সের মানবাধিকার সংগঠন মেডিসিনস সান ফ্রন্টিয়ার্স (এমএসএফ) নতুন সুপারিশকে স্বাগত জানিয়ে সরকারকে পেটেন্ট-এর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহবান জানান যাতে অধিক মানুষের মাঝে সম্ভবমত এই চিকিৎসার সুফল পৌঁছানো যায়।

‘বারিসিটিনিব’ যুক্তরাষ্ট্রের ফার্মাসিউটিক্যাল মোড়ল এলি লিলি উৎপাদন করছে, যখন জেনেরিক ভার্সন বা জাতিগত ধরণ ভারত ও বাংলাদেশে সহজলভ্য, তখন ইন্দোনেশিয়া ও ব্রাজিলসহ অন্যান্য অনেক দেশে পেটেন্ট কার্যকর।

যে দেশে এমএসএফ কাজ করে তার সংক্রামক রোগের স্বাস্থ্য উপদেষ্টা ডা. মারসিও দা ফনসেকা এক বিবৃতিতে বলেন, সাম্প্রতিক দু’বছরে আমরা অসহায়ভাবে প্রত্যক্ষ করেছি যে, রোগের বিপর্যয়ে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে মানুষ মারা যাচ্ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যোগ করে বলেন ‘জীবন রক্ষাকারী’ ইনটারলিউকিন-৬ রিসেপটর ব্লকার কোভিড-১৯ এর চিকিৎসার জন্য গত জুলাই মাসে তালিকাভূক্ত করা হয়। যেখানে কর্টিকসটিরোইডস ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে সুপারিশ করা হয়।

কোম্পানিটি বলছে, সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে সরকারি নিয়ন্ত্রকরা প্যাক্সোলোভিড,ফাইজারের এন্টিভাইরাল পিলকে রোগের জন্য মৌখিক চিকিৎসার অনুমোদন দিয়েছে, যাতে রোগীর মৃত্যুঝুকি কমায় ও ৯০ ভাগ কার্যকারিতা দেখা যায় এবং হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হয় না। ওমিক্রনের সংক্রমণের সময়ও এটি কার্যকারিতা ধরে রেখেছে।

আনসারী/এনএনবিডি