ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:
ব্রেকিং নিউজ

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২০:১২

বিশ্বে প্রথম দেশের নামের সঙ্গে 'ডিজিটাল' শব্দ যুক্ত হয় বাংলাদেশে

23070_জব্বার.jpg
ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেন, ২০০৮ সালে বিশ্বে প্রথম দেশের নামের সঙ্গে 'ডিজিটাল' শব্দ যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণার একবছর পর ২০০৯ সালে ইংল‍্যান্ড 'ডিজিটাল ব্রিটেন' নামে কর্মসূচি নেয়। আমাদের ছয় বছর পর ভারত ডিজিটাল ইন্ডিয়া এবং পাকিস্তান ২০১৯ সালে ডিজিটাল পাকিস্তান কর্মসূচি গ্রহণ করে।

শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) বাংলা অ‍্যাকাডেমির আবদুর করিম সাহিত্য বিশারদ মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মহান বিজয় দিবস ও স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন উপলক্ষ্যে 'বঙ্গবন্ধু রাষ্ট্র-সৃষ্টি বিপ্লব : স্বাধীনতার ৫০ বছরে অগ্রগতি ও প্রতিবন্ধকতা' শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়।

মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার আজকে ৫০ বছর হলেও দেশ স্বাধীনতার পথে হেঁটেছে মাত্র ২১ বছর। বাকী ২৯ বছর দেশকে পাকিস্তান বানানোর চেষ্টা করা হয়েছে। যার ফলে আমরা কিছুটা পিছিয়ে পড়েছিলাম। তবে শেখ হাসিনা তার যোগ্য দূরদর্শী নেতৃত্বের মাধ্যমে আমাদের এগিয়ে নিয়ে গেছে।

বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে আমরা ২০০০ সালের মধ্যে আজকের এই অবস্থানে পৌঁছে যেতাম উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা স‍‍্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছি ২০১৮ সালে আর বঙ্গবন্ধু ১৯৭৫ সালের ১৪ জুন ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র তৈরি করেছেন। বঙ্গবন্ধু টিএনটি বোর্ড গঠন করেন, ইন্টারন‍্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশনের সদস্য করেন।

মোস্তফা জব্বার বলেন, আমরা আজকে ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয় করেছি। বঙ্গবন্ধু কারিগরি শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব দিয়ে গেছেন। তিনি প্রথমেই ২৬ হাজার প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ করেন। বিনামুল্যে বই বিতরণ করেন। একই সঙ্গে শিক্ষকদের জাতীয়করণ করেন। একটি যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশকে দূরদর্শী নেতৃত্বের মাধ্যমে তিনি পরিবর্তন করে দেন।

তিনি বলেন, পৃথিবীতে ৫জি শুরু হয় ২০১৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি। আমরা এখন ৫-জিতে পৌঁছেছি। বাংলাদেশ অতীতে ৩২৪ বছর পিছিয়ে থাকা দেশ সেই দেশ মাত্র দুই বছরে ৫-জিতে পৌঁছ‍াবে এটা কোন দেশ কখনো চিন্তা করে নি।

মোস্তফা জব্বার বলেন, আগামী পাঁচ থেকে দশ বছরের মধ্যে একমাত্র চীনারা আমাদের উপরে থাকবে। চীনাদের সঙ্গে আমরা পারব না তবে পৃথিবীর আর কোন ভাষা বাংলা ভাষার উপরে থাকবে না।

আলোচনা সভায় মূখ‍্য আলোচক ছিলেন রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক পবিত্র সরকার, সভাপতিত্ব করেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান।