ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:

জেলা প্রতিনিধি

১১ জুলাই ২০২১, ১১:০৭

ঠাকুরগাঁওয়ে তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা

19175_news_234466_1.jpg
ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ করায় তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেছে হাসপাতালটির পরিচালক ডা. নাদিরুল আজিজ (চপল)। এ মামলায় ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশন ও অনলাইন পোর্টাল জাগো নিউজের ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি তানভির হাসান তানুকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

শনিবার (১০ জুলাই) রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে শুক্রবার (০৯ জুলাই) দুপুরে জেলার সদর থানায় তিন সাংবাদিককে আসামি করে মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলার অন্য দুই আসামি হলেন, নিউজ বাংলা২৪ ডটকমের ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি রহিম শুভ এবং বাংলাদেশ প্রতিদিন ও নিউজ২৪ চ্যানেলের ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি আব্দুল লতিফ লিটু।

এ ঘটনায় শনিবার রাতেই ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান নেন জেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা। তাঁরা গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান। সেইসঙ্গে গ্রেপ্তার সাংবাদিকের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানান।

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, গত ৫, ৬ ও ৭ জুলাই বিভিন্ন প্রিন্ট ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে ভর্তি করোনা রোগীদের সরকারি বরাদ্দের কম মূল্যের খাবার সরবরাহ নিয়ে মিথ্যা ও জনরোষ সৃষ্টিকারী মানহানিকর সংবাদ প্রকাশ করা হয়। যা ওই সাংবাদিকরা পরস্পরের সহায়তায় ইচ্ছাকৃতভাবে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান হাসপাতালের সুনাম ক্ষুন্ন, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ভাবমূর্তি নষ্ট করাসহ আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটিয়ে পথ্য সরবরাহকারী ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি ও বর্তমান সরকারকে বেকায়দায় ফেলার অসৎ উদ্দেশ্যে প্রকাশ করা হয়েছে। এতে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের প্রতি জনসাধারণের আস্থাহীনতা জনরোষ, বিদ্বেষ ও বিভ্রান্ত সৃষ্টি হওয়ার ঘটনা উপক্রম হয়। এ অবস্থায় বর্ণিত সাংবাদিক ও তাঁদের সহযোগী অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক।

রোগীদের সঙ্গে কথা বলে অভিযোগের বিষয়ে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নাদিরুলের সঙ্গেও কথা বলেছিলেন সাংবাদিক তানু। তখন ডা. নাদিরুল বলেন, ‘ঠিকাদার যেভাবে খাদ্য সরবরাহ করছেন সেভাবেই করোনা রোগীকে খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। অনেক সময় ঠিকাদারের খাদ্য সরবরাহে সমস্যা হলে খাবারের মান খারাপ হতে পারে।’

ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সভাপতি মনসুর আলি বলেন, 'কিছু কুচক্রি মহল চায় তাদের দুর্নীতি ও অপরাধের চিত্র যাতে দেশের মানুষ জানতে না পারে, সেজন্য সাংবাদিকদের দাবিয়ে রাখতে এই মামালার আশ্রয় নিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এই দুর্নীতিবাজ ও অপরাধীদের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিবাদ জানাতে হবে।'

প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান মিঠু বলেন, 'সত্য সংবাদকে ঢাকতে ও অসৎ ব্যক্তিদের পক্ষ নিয়েছে কিছু উচ্চ পর্যায়ের রাজনৈতিক ব্যক্তি ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা। সাংবাদিকদের দমিয়ে রাখতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যাবহার করা হচ্ছে। অবিলম্বে সব সাংবাদিককে নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়া না হলে সাংবাদিকদের নিয়ে রাজপথে থেকে দাবি আদায় করা হবে।'