ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:
ব্রেকিং নিউজ
  • মালয়েশিয়ায় সর্বাত্নক লকডাউনের ঘোষণা
  • সোহবত ছাড়া দাওয়াত ফলপ্রসূ হয় না
  • দশ মিনিটে ক্যান্সার পরীক্ষা, হার্ভার্ডে ডাক পেলেন আবু আলী
  • দ্বিতীয় শ্রেণিতে পাশ করেও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক!
  • দেশে নতুন সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ

এনএনবিডি২৪ ডেস্ক

১০ জুন ২০২১, ২১:০৬

শনাক্ত সবচেয়ে বেশি রাজশাহী বিভাগে, তারপর খুলনা

18295_শনাক্ত.jpg
ছবি- সংগৃহীত
দেশে দৈনিক করোনা শনাক্তের সংখ্যা এখন রাজশাহী বিভাগে সবচেয়ে বেশি। তারপরেই খুলনা বিভাগে রোগী শনাক্ত হয়েছে। দেশের এই দুই বিভাগের ভারত সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে করোনা সংক্রমণ ক্রমশ বাড়ছে।
 
আজ বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে গতকোল বুধবার সকাল ৮টা থেকে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত দেশে ২ হাজার ৫৭৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার কথা জানানো হয়েছে।
 
এর মধ্যে ৮১৫ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে রাজশাহী বিভাগে। আর খুলনা বিভাগে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫৭৮ জন। ঢাকা বিভাগে শনাক্ত হয়েছেন ৫১৩, চট্টগ্রাম বিভাগে ৩৩৭, রংপুর বিভাগে ১৩০, ময়মনসিংহ বিভাগে ১১৯, সিলেট বিভাগে ৯২ এবং বরিশাল বিভাগে ৪৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।
 
রাজশাহী বিভাগের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে রাজশাহী জেলায় ৩৫৩ জন। এরপর রয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা, সেখানে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১৫৮ জন। এ ছাড়া জয়পুরহাটে ৯৬, নওগাঁয় ৯৪, নাটোরে ৬২, পাবনায় ২৭, বগুড়ায় ১৫ ও সিরাজগঞ্জে ১০ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন।
 
আর খুলনা বিভাগের সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে যশোরে ২০০ জন। এরপরে রয়েছে খুলনা জেলা, রোগী শনাক্ত হয়েছে ১২২ জন। এরপর কুষ্টিয়ায় ৭৩, বাগেরহাটে ৬৩, সাতক্ষীরায় ৪৮, চুয়াডাঙ্গায় ৩৭, ঝিনাইদহে ২১, মেহেরপুরে ৯ ও নড়াইলে ৫ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে।
 
রোগী শনাক্তের দিক দিয়ে তৃতীয় ঢাকা বিভাগের মধ্যে এখনো সবচেয়ে বেশি রোগী ঢাকায়। ঢাকা মহানগর মিলিয়ে এই জেলায় শনাক্ত রোগী সংখ্যা ২৮৮ জন। এরপর বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে গাজীপুরে ৪৭ এবং ফরিদপুর ও টাঙ্গাইলে ৪৬ জন করে। এ ছাড়া মাদারীপুরে ২০, কিশোরগঞ্জে ১৬, নারায়ণগঞ্জে ১২, নরসিংদীতে ১১, মানিকগঞ্জে ৮, রাজবাড়ী ৭, গোপালগঞ্জে ৬, শরীয়তপুরে ৪ ও মুন্সিগঞ্জে ২ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন।
 
চট্টগ্রাম বিভাগে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে চট্টগ্রাম জেলায় ১১৯। এরপর নোয়াখালীতে ৮৭ ও কক্সবাজারে ৬৩ সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে। রংপুর বিভাগে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে দিনাজপুরে ৪৩ জন। এরপরে ঠাকুরগাঁওয়ে ৩৯ জন এবং রংপুরে ১৯ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। ময়মনসিংহ বিভাগে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে ময়মনসিংহ জেলায় ৩৫ জন।
 
বরিশাল বিভাগে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে বরিশাল জেলায় ৩৪ জন। অন্য সব জেলার অবস্থা এখনো ভালো আছে। সিলেট বিভাগে বেশি রোগী সিলেট জেলায় ৬৯ জন। এরপরে রয়েছে মৌলভীবাজার ১৯ জন। অন্য দুই জেলায় রোগী শনাক্ত হয়েছে দুইজন করে।
 
গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন ৪০ জন। এ সময় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে চট্টগ্রাম বিভাগে, ১২ জনের। এরপর ঢাকা ও রাজশাহী বিভাগে ৮ জন করে, খুলনা বিভাগে ৬ জন, রংপুরে ৪ জন ও সিলেটে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।
 
নতুন শনাক্তদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে মোট ৮ লাখ ২০ হাজার ৩৯৫। মোট মৃত্যু হয়েছে ১২ হাজার ৯৮৯ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৭ লাখ ৫৯ হাজার ৬৩০ জন।
 
২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণ দেখা দেয়। পরে তা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। তারপর ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে সংক্রমণ। গত বছরের শেষ দিকে এসে সংক্রমণ কমতে থাকে।
 
এ বছরের মার্চ থেকে করোনা সংক্রমণ আবার বেড়ে যায়। মার্চের প্রথমার্ধেই দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা হাজারের ওপরে চলে যায়। বাড়তে থাকে মৃত্যুর সংখ্যাও। গত ২৬ মার্চের বুলেটিনে আগের ২৪ ঘণ্টায় ৩৪ জনের মৃত্যুর খবর দেওয়া হয়, সেখানে ১৯ এপ্রিলের বুলেটিনে আগের ২৪ ঘণ্টায় ১১২ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়। দেশে করোনা সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর ওই দিনই সবচেয়ে বেশিসংখ্যক মানুষের মৃত্যু হয়।