ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:
ব্রেকিং নিউজ
  • মালয়েশিয়ায় সর্বাত্নক লকডাউনের ঘোষণা
  • সোহবত ছাড়া দাওয়াত ফলপ্রসূ হয় না
  • দশ মিনিটে ক্যান্সার পরীক্ষা, হার্ভার্ডে ডাক পেলেন আবু আলী
  • দ্বিতীয় শ্রেণিতে পাশ করেও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক!
  • দেশে নতুন সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১০ জুন ২০২১, ১১:০৬

’উপ্রপন্থি’ আখ্যা দিয়ে রাশিয়ায় নাভালনির সংগঠনকে অবৈধ ঘোষণা

18254_464+.jpg
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে বিদ্রূপ করার প্রচারণার অংশ হিসেবে আলেক্সেই নাভালনির প্রতিষ্ঠিত সংগঠনগুলোকে ‘উগ্রপন্থি’ আখ্যা দিয়েছে দিয়ে সেগুলোকে অবৈধ ঘোষণা করেছেন দেশটির একটি আদালত।
 
এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।
 
স্থানীয় সময় বুধবার মস্কো সিটি কোর্টের রায় দিয়েছেন- নাভালনির দুর্নীতিবিরোধী ফাউন্ডেশন (এফবিকে) এবং রাশিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা এর অন্যান্য অফিসগুলো বন্ধের আদেশ দেয়।
 
এ রায়কে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে হিসেবে আখ্যয়িত করেছেন নাভালনি সমর্থকরা। তারা বলছেন, আসন্ন পার্লামেন্ট নির্বাচনের কয়েক মাস আগে পুতিন-বিরোধীদের স্তব্ধ করে দেওয়ার হীন উদ্দেশ্য নিয়ে এই রায় দেওয়া হয়েছে। আল জাজিরা-র খবরে বলা হয়েছে, মস্কো সিটি কোর্টের দেওয়া এ রায় তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হয়েছে। এর ফলে নাভালনির প্রতিষ্ঠান ফাউন্ডেশন ফর ফাইটিং করাপশন (এফবিকে) এবং নেটওয়ার্ক অব রিজিওনাল অফিসার্স অ্যাক্রস রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা সরকারি কোনও পদ পদবীর জন্য প্রার্থী হতে পারবেন না।
 
এছাড়া নাভালনির সংগঠনগুলোকে উগ্রপন্থী হিসেবে আখ্যায়িত করায় সরকারের পক্ষে সেগুলোর সঙ্গে যুক্ত অ্যাক্টিভিস্ট ও তহবিলদাতাদের বিচারের আওতায় এনে দীর্ঘ সাজা দেওয়ার সুযোগ রয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের মুখপাত্র আলেক্সি জাফেয়ারভ বলেন, এই সংগঠনগুলো সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ও শত্রুতাকে প্ররোচিত করে এমন তথ্যই শুধু ছড়িয়ে দেয়নি বরং তারা চরমপন্থী কার্যকলাপে লিপ্ত হয়েছে।
 
রাশিয়াতে উগ্রপন্থি সংগঠনের তালিকায় অন্তত ৩০টি সংগঠন রয়েছে, যাদের মধ্যে ইসলামিক স্টেট (আইএসআইএস), আল কায়েদা, জাহোভেস ইত্যাদি সংগঠনগুলো রয়েছে। সেই তালিকায় এখন নাভালনির সংগঠনও অন্তর্ভুক্ত হলো।
 
এর আগে, চলতি বছরের এপ্রিলে মস্কোর একটি আদালত এফবিকে বন্ধের নির্দেশ দিয়েছিল। এরপর সরকারি কৌঁসুলিরা সংগঠনগুলোকে ‘সন্ত্রাসী ও উগ্রপন্থি’ সংগঠনের তালিকায় যুক্ত করার আবেদন জানিয়েছিল।
 
তখন ব্রিটিশ গণমাধ্যম গার্ডিয়ানের এক বিশ্লেষণে বলা হয়, এই সিদ্ধান্তকে ক্রেমলিনের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে একটি সুদূরপ্রসারী আঘাত।