ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
সর্বশেষ:
ব্রেকিং নিউজ
  • মালয়েশিয়ায় সর্বাত্নক লকডাউনের ঘোষণা
  • সোহবত ছাড়া দাওয়াত ফলপ্রসূ হয় না
  • দশ মিনিটে ক্যান্সার পরীক্ষা, হার্ভার্ডে ডাক পেলেন আবু আলী
  • দ্বিতীয় শ্রেণিতে পাশ করেও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক!
  • দেশে নতুন সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

৬ জুন ২০২১, ১৬:০৬

নাইজারে বন্দুকধারীর গুলিতে ১৩২ জন নিহত

18089_13621.jpg
আফ্রিকার দেশ নাইজারের বুরকিনা ফসোর উত্তরাঞ্চলের অশান্ত একটি এলাকায় বন্দুকধারীর গুলিতে ১৩২ জন মানুষ নিহত হয়েছেন। এতে দেশটিতে তিন দিনের শোক ঘোষণা করা হয়েছে।

শনিবার এক বিবৃতিতে দেশটির সরকার জানায়, শুক্রবার রাতে নাইজারের সীমান্তের প্রদেশ ইয়াগহার সোলহান গ্রামের অধিবাসীদের উপর এই বর্বর হামলা চালানো হয়। হামলাকারীরা এসময় গ্রামবাসীদের বাড়িঘর, দোকানপাট পুড়িয়ে দেয়।

সরকারের মুখপাত্র অসেনি তাম্বুরা সাংবাদিকদের বলেন, সাত শিশুও হামলার শিকার হয়েছেন। এছাড়া অন্তত আরো ৪০ জন গ্রামবাসী আহত হয়েছেন।

সোলহানের একজন স্থানীয় ব্যক্তি এএফপি জানায়, বন্ধুকধারীরা শুক্রবার আনুমানিক রাত ২টায় জাতীয় সেনাবাহিনী সমর্থিত নাগরিকদের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ‘ভোলান্টিয়ার ফর দ্যা ডিফেন্স অফ দ্যা মাদারল্যান্ড’ (ভিডিপি)-এর বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। এরপর তারা বাড়িতে হামলা চালায় এবং ফাঁসি দেয়া শুরু করে।

এদিকে বন্দুকধারীদের এরূপ বর্বর হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিয়ো গুতরেসে। তিনি ‘বর্বর হামলার’ জবাবে চরম যুদ্ধ করার জন্য দেশটির প্রতি পদক্ষেপ নিতে বলেন, সেক্ষেত্রে বিশ্ব সম্প্রদায় পূর্ণ সহযোগিতা করবেন।

এভাবে মানব হত্যাকে অগ্রহণযোগ্য উল্লেখ করে, জাতিসংঘ মহাসচিব চরমপন্থার বিরুদ্ধে যুদ্ধকারী সদস্য দেশগুলোকে তাদের সহযোগিতাকে দ্বিগুন করার আহবান জানান।

দেশটির প্রেসিডেন্ট রক মার ক্রিস্টিয়ান কাবোরি হাত্যাকান্ডকে বর্বর উল্লেখ করে বলেন, ‘বুরকানিয়াব জনগণ অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ থাকবে এবং এই ধরনের গুপ্তঘাটতক শক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ থাকবে’।

এখন পর্যন্ত কোনো গোষ্ঠী হামলার দায় স্বীকার করেনি।

বুরকিনা ফসোতে রাতভর এই হত্যাযজ্ঞ এবছরের জন্য সর্বাধিক।

পশ্চিম আফ্রিকার এই দেশটি ২০১৫ সাল থেকে আল-কায়েদার সাথে সম্পৃক্ত আইএসআইএল(আইসিস)-এর একাধিক হামলার মোকাবেলা করে আসছে। প্রথম হামলাটি দেশটির উত্তরের মালি’র সীমান্ত এলাকায় চালানো হয়েছিল। কিন্তু ক্রমেই তা অন্যান্য এলাকায় ছড়িয়েছে, বিশেষ করে পুর্বে। এর ফলে ওই এলাকাটি চরম মানবিক সংকটে রয়েছে।

বুরকিনা ফসো’র প্রায় বারো লাখ মানুষ দীর্ঘদিন ধরে চলা যুদ্ধ ও সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো কর্তৃক সেনাবাহিনী ও বেসামরিক মানুষের উপর হামলার কারণে বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়েছে। যদিও ফ্রান্সের ও বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রের হাজার হাজার সেনা সাহেলে মোতায়েন রয়েছে।

পশ্চিম আফ্রিকার হিউম্যান রাইটস ওয়াচের পরিচালক কোরিন ডুফকা বলেন, সোলহানে হামলাটি এই বছরের শাহিলের হামলার কায়দায় চালানো হয়েছে।

এনএনবিডি/ আনসারী