ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
ব্রেকিং নিউজ

স্টাফ রিপোর্টার

১১ মার্চ ২০২১, ১৯:০৩

রমযান মাসে কীভাবে চলবে করোনা টিকা কার্যক্রম?

16131_করোনা টিকা.jpg
ছবি: সংগৃহীত
কর্তৃপক্ষ বলছে রমযান মাসে স্বাভাবিক সময়ের মতোই দিনের বেলা করোনার টিকা কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে, তবে বিতর্ক এড়াতে এ নিয়ে ধর্মীয় নেতাদের সঙ্গে রোববার (১৪ মার্চ) বৈঠক ডেকেছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।
 
বিশেষ করে যারা রোজা পালন করবেন তাদের জন্য আলাদা সময়ের প্রয়োজন আছে কি-না, তা নিয়ে মূলত তারা আলোচনা করবেন। তাদের মতামতের ভিত্তিতে স্বাস্থ্য বিভাগ ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সাথে বৈঠক করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবে বলে জানিয়েছেন সরকারের ভ্যাকসিন কমিটির সদস্য ডা: সামছুল হক।
 
গত ২৭শে জানুয়ারি টিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধনের পর সাতই ফেব্রুয়ারি থেকে সারাদেশে এ কার্যক্রম শুরু হয়। ফলে বিপুল সংখ্যক মানুষের দ্বিতীয় ডোজ টিকার তারিখ পড়বে রমযান মাসেই। এছাড়া নতুন নিবন্ধনকারীদের অনেকের তারিখও রমযান মাসে পড়বে। এপ্রিল মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে রমজান মাস শুরু হওয়ার কথা।
বাংলাদেশে মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের প্রায় সবাই রোজা পালন করে থাকেন। ফলে এর মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে যে রোজা রেখে টিকা দেয়ার ক্ষেত্রে ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে কোনো সমস্যা হতে পারে কিনা।
 
সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউট বা আইইডিসিআর-এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এ এস এম আলমগীর গণমাধ্যমকে বলেন, আপাতত সিদ্ধান্ত হলো টিকা কার্যক্রম এখন যেভাবে চলছে সেভাবেই চলবে, কারণ ইতোমধ্যেই আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ইসলামিক পণ্ডিতরা জানিয়েছেন যে রোজা করেও টিকা নিতে ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে কোন বাধা নেই।

"তারপরেও আলেমদের সাথে ইসলামিক ফাউন্ডেশন রোববার বসবে এবং সেখানে আলোচনার পর তারা সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবে। আমরা আশা করি ভ্যাকসিন দেয়ার কার্যক্রম এভাবেই চলবে কারণ রোজা করে ইনসুলিন নিয়ে থাকেন অনেকে। সেক্ষেত্রে করোনা ভ্যাকসিন নেয়ার ক্ষেত্রেও সমস্যা হওয়ার কথা নয়," বলেন তিনি।
আইইডিসিআর-এর উপদেষ্টা মুশতাক হোসেনও বলেন, যে টিকাদান কার্যক্রমে পরিবর্তনের কোনো সম্ভাবনা এখন পর্যন্ত নেই।
 
বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিভাগের হিসেব অনুযায়ী ১০ই মার্চ পর্যন্ত দেশে মোট ৫৪ লাখ ৫০ হাজার ২৮৯ জন ভ্যাকসিনের জন্য নিবন্ধন করেছেন আর টিকা নিয়েছেন ৪১ লাখ ১৮ হাজার ৯৫৩ জন।
 
তবে শুরুতে মানুষের মনে টিকার কার্যকারিতা ও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নিয়ে নানা সন্দেহ থাকলেও গত ৭ই ফেব্রুয়ারি দেশব্যাপী টিকা কর্মসূচি শুরুর দিন দেশের কয়েকজন শীর্ষ রাজনীতিক টিকা দিতে শুরু করার পর টিকা দিতে আগ্রহ বেশি দেখা গেছে।