ENGLISH  |  ARABIC  |  NNBDJOBS  |  BLOG
ব্রেকিং নিউজ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

১৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬:১২

রোকেয়া দিবসের আলোচনা সভা

শিক্ষাই হতে পারে নারী মুক্তির একমাত্র অবলম্বন: অধ্যাপক চেমন আরা

15524_15131220.jfif
নারী অধিকার আন্দোলনের উদ্যোগে আজ ‘নারী শিক্ষায় বেগম রোকেয়ার অবদান’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।  নারী অধিকার আন্দোলনের সভানেত্রী অধ্যাপিকা চেমন আরা সভাপতিত্বে ও কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর আফিফা মুশতারীর সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন নারী অধিকার আন্দোলনের সেক্রেটারি প্রফেসর ডা. হাবিবা চৌধুরী সুইট, প্রফেসর ডা. নাঈমা মোয়াজ্জেম, ডা. শাহনুর বেগম, মিসেস ফরিদা রহমান ও মিসেস নূরুন্নাহার নিরু প্রমূখ।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন ছিলেন এ দেশের নারী জাগরণের অগ্রদূত। তিনি তার নিজ জীবনের মধ্যেই অনুধাবন করেছিলেন তদানীন্তন সমাজে নারীর পশ্চাদপদ অবস্থান; উপলব্ধি করেছিলেন শিক্ষাই হতে পারে নারীর আত্মমর্যাদা ও অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রধান অবলম্বন। তার জীবন-কর্ম ও সংগ্রামের লক্ষ্যই ছিল নারী শিক্ষার বিস্তারের মধ্য দিয়ে নারীমুক্তি। তার এই পথচলা মোটেই সহজ ছিল না বরং অনেক বন্ধুর পথ অতিক্রম করেই তাকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হয়েছে। এই কিংবদন্তীতুল্য নারী তার ক্ষুরধার লেখনির মাধ্যমে নারীর প্রতি সমাজের অন্যায় ও বৈষম্যমূলক আচরণের মূলে কুঠারাঘাত করেছিলেন। পরিবার, সমাজ ও অর্থনীতি জীবনের এই তিন প্রধান অনুষঙ্গে নারীকে আত্মমর্যাদাশীল হতে তিনি নারী সমাজকে গভীরভাবে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। বক্তারা বেগম রোকেয়ার কর্মময় জীবন ও আদর্শে নারী সমাজকে আরো উদ্যমী ও অনুপ্রাণিত হওয়ার আহ্বান জানান।

তারা বলেন, বেগম রোকেয়া নারী সমাজে শিক্ষার আলো পৌঁছে দিতে যে ভূমিকা পালন করেছেন তা ইতিহাসে চিরদিনই স্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি তার দূরদর্শিতা, প্রজ্ঞা, প্রতিভা ও বিচক্ষণতায় উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন যে, নারীর ভাগ্যোন্নয়নে শিক্ষা ও স্বাবলম্বী হওয়ার কোনো বিকল্প নেই। মূলত বেগম রোকেয়ার জীবন ও তার আদর্শ বাস্তবায়নেই এ দেশের নারী সমাজকে আলোকিত ও আত্মনির্ভরশীল করে তোলা সম্ভব। তারা বেগম রোকেয়ার আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে নারী সমাজকে নিজেদের নায্য অধিকার আদায় এবং দেশ ও জাতির কল্যাণে আত্মনিয়োগ করার আহ্বান জানান।

তারা আরও বলেন, মহলবিশেষ বেগম রোকেয়াকে নিয়ে নানাবিধ অপপ্রচারে লিপ্ত। তাদের ভাষায়, নারী জাগরণের এই মহান অগ্রদূত নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় ধর্মীয় তথা ইসলামী বিধি-নিষেধের তোয়াক্কা করেননি। কিন্তু এটি নিছক একটি অপপ্রচার ছাড়া কিছু নয় বরং তিনি ইসলামী বিধিবিধানের আওতায় থেকেই তার ক্ষুরধার লেখনীর মাধ্যমে নারী শিক্ষার সম্প্রসারণে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেছিলেন। তাঁর বিভিন্ন লেখনী ও জীবনাচারণ থেকে তা খুবই সুস্পষ্ট। তাই কোনো অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হয়ে বেগম রোকেয়ার কর্মময় জীবন ও আদর্শ অনুসরণ করে নারী সমাজকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। তাহলেই নারী সমাজ শিক্ষা-দীক্ষায় উন্নত হয়ে একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সমর্থ হবে।